এফিলিয়েট মার্কেটিং কি এবং এফিলিয়েট মার্কেটিং করে কিভাবে আয় করবেন

এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) এর নাম কম বেশি সবাই শুনেছেন। আর শুনবেন না-ই বা কেন, অনলাইন থেকে আয় করার অদম্য ইচ্ছাশক্তি যাদের আছে, অন্তত তারা এই শব্দটির সাথে অনেকটাই পরিচিত। যদি ইচ্ছাশক্তি না থাকতো তাহলে তো আর আপনি এই পোষ্টটি পড়তে আসতেন না।
What is Affiliate Marketing?


সে যাই হোক না কেন, এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) করে অনলাইনে আয় করার বিষয়টি কিন্তু বর্তমানে সর্বাধিক জনপ্রিয় একটি বিষয়। মূলত একারনেই বহু সংখ্যক মানুষ এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) কেই তাদের ক্যারিয়ার হিসেবে নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন।

তাই আজকের এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) সম্পর্কে বিস্তারিত ধারনা প্রদান করব। যাতে করে এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) সম্পর্কে একটি পরিপূর্ন ধারনা লাভ করতে পারেন এবং অন্যান্যদের মতো আপনারাও যেন, এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) করে অনলাইনে আয় করতে পারেন।

আমাদের আজকের আর্টিকেলের মূল বিষয় গুলো হলো:

  • এফিলিয়েট মার্কেটিং কি?
  • এফিলিয়েট মার্কেটিং কেন করবেন?
  • এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে কি কি প্রয়োজন হয়ে থাকে?

তাহলে চলুন এবারে এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি?

মনে করুন, আপনি daraz.com এর একটি পন্য আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটে প্রোমোট করলেন। আপনার করা প্রোমোশন থেকে উক্ত পন্যটি বিক্রি হলে আপনি সেখান থেকে একটি কমিশন পাবেন। মূলত এটাই এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing)

ধরা যাক, daraz.com৪৮০০০ টাকায় একটি ল্যাপটপ সেল হচ্ছে। এখন আপনার একটা ব্লগ বা ওয়েবসাইট আছে, আর সেখানে প্রচুর মানুষ আসা যাওয়া করে। তো আপনি ওই ল্যাপটপটির সম্পর্কে বিস্তারিত আপনার ওয়েবসাইটে দিয়ে দিলেন।

এর আপনার ওয়েবসাইট থেকে যদি কেউ daraz.com এ গিয়ে এই ল্যাপটপটি কেনে তাহলে আপনি সেখান থেকে একটা নির্দিষ্ট এমাউন্ট কমিশন পাবেন। মনে করুন, আপনার কমিশন ছিল ৫% তাহলে, ৪৮ হাজার টাকার পন্য বিক্রি করলে আপনি পাবেন ২৪০০ টাকা।

এফিলিয়েট মার্কেটিং কেন করবেন?

প্রথমেই আমরা জেনেছি এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) কি? এবং এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) করে কীভাবে আয় হয়ে থাকে। এখানে অন্তত এই বিষয়টি পরিস্কার যে, এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) একটি স্মার্ট ও আধুনিক পেশা।

এই পেশাটি অন্য সকল পেশার থেকে সম্পূর্ন আলাদা। এই পেশার কিছু নিজস্বতা রয়েছে যেমন:
  • নিজের নয় বরং অন্যের পন্যকে বিক্রি করার মাধ্যমে আয় হয়ে থাকে।
  • নিজ পছন্দ অনুযায়ী পন্য প্রোমোশনের সুযোগ থাকে।
  • যত খুশি তত পন্য প্রোমোট করার সুযোগ থাকে কোনো লিমিট নাই।
  • এই কাজের জন্য বাহিরে কোথাও যাওয়ার প্রয়েোজন হয় না।
  • এ কাজে সময়ের স্বাধীনতা থাকে অর্থ্যাৎ যখন খুশি তখন কাজ।
  • একটি এফিলিয়েট সাইট থেকে এফিলিয়েট ছাড়াও আয়ের অনেক সুযোগ থাকে।
  • সময়ের সাথে সাথে নিজের কমদক্ষার মুল্য বৃদ্ধি পেতে থাকে।

এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) এ আয়ের পরিমান নির্ভর করে মার্কেটিং দক্ষতা এবং কি পরিমান পন্য বিক্রি করেছেন তার উপর। তবে প্রতি মাসেই এফিলিয়েট মার্কেটাররা মাসেই কমপক্ষে ২০০০ থেকে ৩০০০ হাজার ডলার বা এর বেশিও ইনকাম করে থাকেন।

এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে কি কি প্রয়োজন হয়ে থাকে?

আমরা এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) কি এবং এটি কেন করা হয় সে সম্পর্কে ইতিমধ্যেই জেনেছি। এবারে জানবো কিভাবে এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) শুরু করতে হয়।

প্রফেশনালি এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) করতে হলে আপনার প্রোয়োজন হবে একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইট, ইউটিউব চ্যানেল এবং একটি ফেসবুক পেইজ।

যদি আপনার ফেসবুক পেইজ না থাকে তাহলেও চলবে। তবে থাকলে ভালো হয়। আমাদের বাংলাতে একটা কথা আছে “যত গুর তত মিঠা”। বিষয়টা অনেকটাই এরকম যে, ইনকাম সোর্স বেশি থাকলে আয় বেশি আর ইনকাম সোর্স কম থাকলে আয় কম হবে।

এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) করার ক্ষেত্রে, শুধু ওয়েবসাই, ইউটিউব চ্যানেল এবং ফেসবুক পেইজ থাকলেই হবে না সাথে এগুলোতে প্রচুর পরিমানে traffic বা ভিজিটর থাকতে হবে। কারন যদি এসবে ভিজিটর না থাকে তাহলে আপনার এড দেখবেই বা কে আর আপনার প্রোমোটকৃত পন্য কিনবেই বা কে?

পন্য বিক্রির কথা ছাড়ুন, আপনি Amazon, Aliexpress এর মতো অনলাইন ষ্টোর গুলো থেকে এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) এর জন্য এপ্রুভালই পাবেন না।

কিন্তু যদি ভিজিটর থাকে তাহলে সেটা খুব দ্রুতই Aprove হয়ে যবে। এখন প্রশ্ন আসতে পারে যে, Amazon ও Aliexpress এর মতো online Store গুলো থেকে এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) এর জন্য এপ্রুভাল পেতে সাইট, পেজ বা চ্যানেলে কত ভিজিটর্সের প্রয়োজন হয়ে থাকে?

এর প্রশ্নোত্তরে আমি বলবো আপনার সাইট, পেজ বা চ্যানেলে প্রতিদিন নূন্যতম ১ হাজার ভিজিটর থাকতে হবে। তবেই আপনি এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) করার জন্য এপ্রুভাল পাবেন।

কারন যদি ভিজিটর্স এর থেকেও কম হয় তাহলেও হয়তো এপ্রুভাল পাবেন কিন্তু আপনার পন্য সেল হওয়ার চান্স খুবই কম থাকবে।